সব
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮
DBBL Ad

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

ভারত ও থাইল্যান্ডে পালাচ্ছে মিয়ানমারের বাসিন্দারা

মিয়ানমারে রাজনৈতিক অস্থিরিতায় সৃষ্ট সহিংসতা থেকে বাঁচতে সীমান্তবর্তী দেশ ভারত ও থাইল্যান্ডের দিকে ছুটছে দেশটির বাসিন্দারা। তবে দুই দেশের সরকারই তাদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে। তাদের আশঙ্কা মিয়ানমারের পরিস্থিতি খারাপ হলে যেকোনও সময় শরণার্থী ঢল তৈরি হবে। জাতিসংঘের শীর্ষ এক কর্মকর্তা সতর্ক করে বলেন, পদক্ষেপ নেয়া না হলে যেকোনও সময় মিয়ানমারের পতন হবে।  

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০২১, ১২:৪৭

মিয়ানমারে রাজনৈতিক অস্থিরিতায় সৃষ্ট সহিংসতা থেকে বাঁচতে সীমান্তবর্তী দেশ ভারত ও থাইল্যান্ডের দিকে ছুটছে দেশটির বাসিন্দারা। তবে দুই দেশের সরকারই তাদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে। তাদের আশঙ্কা মিয়ানমারের পরিস্থিতি খারাপ হলে যেকোনও সময় শরণার্থী ঢল তৈরি হবে। জাতিসংঘের শীর্ষ এক কর্মকর্তা সতর্ক করে বলেন, পদক্ষেপ নেয়া না হলে যেকোনও সময় মিয়ানমারের পতন হবে।  

গত ১ ফেব্রুয়ারি নির্বাচিত নেত্রী অং সান সু চির সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। এরপর থেকেই দেশটিতে বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভকারীরা সু চির মুক্তির পাশাপাশি বেসামরিক কর্তৃপক্ষের হাতে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছেন। এসব বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এখন পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ৪০০ জনের কাছাকাছি।

সেনা-পুলিশের ধরপাকড় ও নির্যাতন-নিপীড়ন থেকে বাঁচতে মিয়ানমারের বহু নাগরিক সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে। তাদের বেশিরভাগই সীমান্তবর্তী মিজোরাম ও মনিপুরে আশ্রয় নিয়েছেন। গত কয়েকদিন ধরে একই চিত্র দেখা যাচ্ছে থাই সীমান্তেও। 

সামরিক বাহিনী ও আদিবাসী সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর মধ্যেও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। সশস্ত্র কারেন গোষ্ঠী- কারেন ন্যাশনাল ইউনিয়নের একটি অংশ থাইল্যান্ড সীমান্তের কাছে একটি সেনা চৌকি গুঁড়িয়ে দেওয়ার দাবি করে। ওই ঘটনায় ১০ জন নিহত হয়। এরপরই কারেনে বিমান হামলা চালায় সেনাবাহিনী। বিমান হামলার পর কারেন রাজ্যে বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছেন প্রায় দশ হাজার মানুষ। এর মধ্যে তিন হাজারই সীমান্ত অতিক্রম করে থাইল্যান্ডে ঢুকে পড়েন। কিন্তু থাই কর্তৃপক্ষ তার পরপরই তাদের পুশব্যাক করেছে।

কারেন রাজ্য এখন পর্যন্ত ২০০৯ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছেন। হাজার হাজার মানুষ বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে গেছে। সীমান্ত পার হওয়া দের থাইল্যান্ড পুশব্যাক করার পর তারা সবাই এখন জঙ্গলের ভেতর আত্মগোপন করে আছেন। 

সেনাবাহিনীর ধারাবাহিক বোমা হামলা থেকে বাঁচতে থাইল্যান্ড যাওয়ার জন্য সালউইন নদী পাড়ি দিয়েছে তিন হাজার মানুষ।

অন্যদিকে মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকেই দেশটির বহু নাগরিক সীমান্ত অতিক্রম করে আশ্রয় নেয় ভারতের মনিপুর রাজ্যে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পালিয়ে আসা এসব শরণার্থীকে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দেয় মণিপুর রাজ্য সরকার। ফিরিয়ে দেওয়ার আদেশ দিয়ে পরে তা প্রত্যাহার করে নেয় তারা।

থাই প্রধানমন্ত্রী প্রয়ুত চার ও চা বলেন, আমরা চাই না কোনও শরণার্থী ঢল আমাদের সীমান্তে আসুক। তবে আমরা মানবিক হবো না। 

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

/এমএইচ/

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

ভারতে দৈনিক সংক্রমণ দেড় লাখের কাছাকাছি, মৃত্যু ৭৯৪

ভারতে দৈনিক সংক্রমণ দেড় লাখের কাছাকাছি, মৃত্যু ৭৯৪

কোচবিহারে গুলিতে পাঁচজন নিহতের রিপোর্ট চেয়েছে নির্বাচন কমিশন

কোচবিহারে গুলিতে পাঁচজন নিহতের রিপোর্ট চেয়েছে নির্বাচন কমিশন

সহিংসতা থেকে বাঁচতে ভারতে আশ্রয় নিচ্ছেন মিয়ানমারের নাগরিকরা

সহিংসতা থেকে বাঁচতে ভারতে আশ্রয় নিচ্ছেন মিয়ানমারের নাগরিকরা

Islami Bank Ad