সব
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮
DBBL Ad

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

মিয়ানমারে রক্তপাতের ঝুঁকি সম্পর্কে জাতিসংঘের দূতের সতর্কবার্তা

সামরিক জান্তা ক্ষমতা দখলের দুই মাস পর, মিয়ানমারের বিক্ষোভকারীরা বৃহস্পতিবার একটি সামরিক সংবিধানের অনুলিপি পুড়িয়েছে। এদিকে, অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর তীব্র ক্র্যাকডাউনের ফলে রক্তপাতের ঝুঁকি রয়েছে বলে সতর্ক করেছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত।

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২১, ১৯:০৯

সামরিক জান্তা ক্ষমতা দখলের দুই মাস পর, মিয়ানমারের বিক্ষোভকারীরা বৃহস্পতিবার একটি সামরিক সংবিধানের অনুলিপি পুড়িয়েছে। এদিকে, অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর তীব্র ক্র্যাকডাউনের ফলে রক্তপাতের ঝুঁকি রয়েছে বলে সতর্ক করেছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত।

সীমান্তবর্তী অঞ্চলে সেনাবাহিনী এবং জাতিগত সংখ্যালঘু বিদ্রোহীদের মধ্যে এক লড়াইয়ের পর এই সতর্কবার্তা দিয়েছেন জাতিসংঘের রাষ্ট্রদূত।

ডিভিবি নিউজ জানিয়েছে, মিয়ানমারের অন্যতম শক্তিশালী বিদ্রোহী দল, কাচিন ইন্ডিপেন্ডেন্স আর্মি (কেআইএ) এর সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ সেনা নিহত হয়েছেন ও চারটি সামরিক ট্রাক ধ্বংস হয়েছে।

২০ বছরেরও বেশি সময়ে প্রথমবারের মতো বোমা হামলা করেছে মিয়ানমারের সামরিক বিমানগুলো। ক্যারেন ন্যাশনাল ইউনিয়ন (কেএনইউ) নামের আরেক গ্রুপের অবস্থানগুলোয় বোমা হামলা করায় হাজার হাজার গ্রামবাসী তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে গেছেন, তাদের অনেকেই থাইল্যান্ডে পাড়ি জমিয়েছেন।

নভেম্বরের নির্বাচনে জালিয়াতির দাবিকে কারণ দেখিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি অং সান সু চি-র নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে সেনাবাহিনী। এরপর থেকেই প্রায় প্রতিদিন বিক্ষোভে জর্জরিত হয়েছে মিয়ানমার। সু চি এবং তার ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) এর অন্যান্য সদস্যদের আটক করা রাখা হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট এবং ফটোগ্রাফ অনুসারে, মিয়ানমারজুড়ে শহরগুলোতে আবারো মোমবাতি জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করা হয়েছে এবং বৃহস্পতিবার ভোরেও বিক্ষোভ চলেছে।

বৃহস্পতিবার রাতে, সামরিক নিয়ন্ত্রিত সংস্থাগুলোর মালিকানাধীন ইয়াঙ্গুনের দুটি শপিং সেন্টারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা ছবিতে আগুনের শিখা এবং ধোঁয়া দেখা গিয়েছে।

এদিকে, জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিলের ১৫ সদস্যের দলকে মিয়ানমারে জাতিসংঘের বিশেষ দূত, ক্রিস্টিন শ্রেণার বারজিন বলেছেন যে সেনাবাহিনী দেশ পরিচালনায় সক্ষম নয়। তিনি সতর্ক করে বলেছেন যে এই পরিস্থিতি ক্রমেই আরো খারাপ হতে পারে।

কাউন্সিলের বক্তব্যে প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ পেয়েছে এবং এসম্পর্কে নিন্দা জানানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত, কমপক্ষে ৫৩৬ জন বেসামরিক নাগরিক বিক্ষোভে নিহত হয়েছেন, তাদের মধ্যে ১৪১ জন নিহত হয়েছেন শনিবার, যা ছিল প্রতিবাদের সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী দিন।

পশ্চিমা দেশগুলো এই অভ্যুত্থানের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। তবে, চীন আরো সতর্ক পন্থা অবলম্বন করেছে এবং সরকারের শীর্ষ কূটনীতিক ওয়াং ইয়ি তার সিঙ্গাপুরীয় সমকক্ষের সঙ্গে বুধবারের বৈঠকে স্থিতিশীলতার আহ্বান জানিয়েছেন।

কূটনৈতিক বৈঠকের অংশ হিসেবে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরাও এই সপ্তাহে ওয়াং ইয়ি-র সঙ্গে সাক্ষাত করতে চীন সফরে যাবেন।

সূত্র: রয়টার্স

/এফসি/এমএইচ/

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

সহিংসতা থেকে বাঁচতে ভারতে আশ্রয় নিচ্ছেন মিয়ানমারের নাগরিকরা

সহিংসতা থেকে বাঁচতে ভারতে আশ্রয় নিচ্ছেন মিয়ানমারের নাগরিকরা

প্রথমবারের মতো ক্ষমতা হস্তান্তরের ঘোষণা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর

প্রথমবারের মতো ক্ষমতা হস্তান্তরের ঘোষণা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর

Islami Bank Ad