সব
রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ২৮ চৈত্র ১৪২৭
DBBL Ad

পুলিশের সহযোগিতায় দেশে ফিরলেন ওমরাহ করতে গিয়ে অসুস্থ বাংলাদেশি

উত্তরায় ট্রেনের ধাক্কায় অটোচালকের মৃত্যু

শিক্ষার্থীরা কেন হল খুলে দিতে বলছেন?

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলার আন্দোলনের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রী বলেন, ‘ক্লাস বা পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য আমাদের বাড়ি ছেড়ে ক্যাম্পাসের কাছাকাছি কোন জায়গায় এসে যখন থাকতেই হচ্ছে, তাহলে আমরা কেন ক্যাম্পাসের হলে থাকব না? নানা জটিলতায় যখন হলে থাকতে পারছি না, তখন আমাদের জাবি ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের ঝামেলাটা এক ধরনের নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি তৈরি করেছে। এমন ঘটনার পরে আমরা নারী শিক্ষার্থীরা খুবই নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ভুগছি। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে হল খুলে দেয়াটাকে যৌক্তিক বলে মনে করি।’

আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১১:৪৫

‘পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া ছাত্রদের অনেকেই টিউশনি বা অন্য ছোট-খাট কোনো কাজ করে নিজেদের লেখাপড়ার খরচ চালান। এজন্য ক্যাম্পাসের হলে থাকাটা তাদের জন্য বাড়তি একটা সুবিধা। এছাড়া করোনার কারণে অধিকাংশ ক্লাস ও পরীক্ষা অনলাইনে হচ্ছে। শহরের বাইরে ইন্টারনেট সুবিধা মোটেও ভালো না। পয়সা খরচ করে ইন্টারনেট কেনার পরও প্রয়োজন মতো ক্লাস করা যায় না। ক্যাম্পাস এরিয়াতে নেট সুবিধা খুব ভালো থাকায় সহজেই অনলাইনে ক্লাস বা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা যায়। যেহেতু ক্লাস-পরীক্ষা হচ্ছেই আর আমরা ক্যাম্পাসের আশে-পাশেই থাকছি, সেহেতু হলে থাকাটাকেই আমরা শ্রেয়তর মনেকরি।’ বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খুলে দেয়ার ব্যাপারে এভাবেই নিজের মতামত জানাচ্ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ৪৭তম আবর্তনের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র এরশাদ।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলার আন্দোলনের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রী বলেন, ‘ক্লাস বা পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য আমাদের বাড়ি ছেড়ে ক্যাম্পাসের কাছাকাছি কোন জায়গায় এসে যখন থাকতেই হচ্ছে, তাহলে আমরা কেন ক্যাম্পাসের হলে থাকব না? নানা জটিলতায় যখন হলে থাকতে পারছি না, তখন আমাদের জাবি ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের ঝামেলাটা এক ধরনের নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি তৈরি করেছে। এমন ঘটনার পরে আমরা নারী শিক্ষার্থীরা খুবই নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ভুগছি। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে হল খুলে দেয়াটাকে যৌক্তিক বলে মনে করি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ বৈকল্য বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র আবু সাঈদ সাকিব সারাক্ষণকে বলেন,  ‘দেশে সব কিছুই চলছে, শুধু আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ। যদি সব কিছুই বন্ধ থাকতো তাহলে হয়তো আমাদের কিছু বলার থাকতো না। এদিকে ঢাবিতে কোন শিক্ষা কার্যক্রম চলছে না। এটাতে আমরা যারা সন্মান চূড়ান্ত বর্ষ বা স্নাতকোত্তরের ছাত্র তারা বেকায়দায় আছি সব থেকে বেশি। শুধু পরীক্ষা শেষ হলেই কারো সন্মান শেষ হয়ে যাবে , কারো স্নাতকোত্তর শেষ হয়ে যাবে। পরীক্ষার কারণে আমরা আটকে আছি। এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাদে অন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস- পরীক্ষা নিয়ে তাদের সন্মান প্রায় শেষ। আমাদের ব্যাচের অনেকেই চাকরিতে ইন্টার্নি শুরু করছে, আবার কেউ কেউ চাকরিতে যোগও দিয়েছে। অন্যদিকে আমরা সন্মান শেষ করতে না পারায় চাকরির প্রস্তুতি নিতে পারছি না। যারা বিসিএস-এর জন্য চেষ্টা করবে তারা সেখান থেকেও পিছিয়ে যাচ্ছে। সব কিছু খোলা থাকার পরেও হল তথা ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি। যখন সব কিছু খোলা রাখা হচ্ছে তখন শুধু শিক্ষাক্ষেত্রে কেন এমন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে? এমন সিদ্ধান্তের নেপথ্যে আমি খুব একটা যুক্তি দেখি না। তাই চাই অনতিবিলম্বে হল খুলে দেওয়া হোক।’

কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে হল খোলার দাবিতে সরাসরি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত থাকা বাংলা বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী জিকে সাদিক সারাক্ষণকে বলেন, ‘হল বা ক্যাম্পাস বন্ধ রেখে ক্লাশ ও পরীক্ষা চালু করা সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ফেলে দিয়েছে। আমরা ইতোমধ্যেই জানতে পেরেছি, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচজন নারী শিক্ষার্থীর ওপর বখাটেরা হামলা করেছে। সেই খবর বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকেও এসেছে। এদিকে দীর্ঘ দিন হল বা ক্যাম্পাস বন্ধ থাকার কারণে শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া থেকে দূরে আছে। হঠাৎ করে অনলাইনে ক্লাস ও পরীক্ষা নেয়া শুরু হয়েছে। আমরা দেখেছি প্রায় ৭০ শতাংশ শিক্ষার্থী পাঠ গ্রহণের বাইরে ছিলো। এভাবে যদি কেবল অনলাইনে ক্লাস ও পরীক্ষা নেয়া হয় তাহলে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা শুধু সার্টিফিকেট সর্বস্ব হয়ে যাবে। অনলাইন কার্যক্রম সচল হওয়ার পর শিক্ষার্থীরা এসে মেসে থাকছে। পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণ করা হচ্ছে। সেখানে হল ফি বাবদ টাকা নেয়া হচ্ছে। তাহলে শিক্ষার্থীরা একই সঙ্গে দুটো ভাড়া কেন বহন করবে? হলের ভাড়া যেহেতু আমরা দিচ্ছি তাহলে আমরা হলেই থাকব।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ওমর ফারুক সারাক্ষণকে বলেন, ‘করোনার মধ্যেই অনলাইনে আমাদের বেশ কিছু ক্লাস ও পরীক্ষা চলমান ছিলো। কিন্তু গত দিন শিক্ষামন্ত্রীর ভাষণের পরে আমাদের চলমান পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় যেহেতু আধা স্বায়ত্বশাসিত তাই সব সময় যে সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে হবে এমন কোন নিয়ম নেই। দেশে যখন সব কিছু চলছে তখন কেন শুধু শিক্ষা ক্ষেত্রে এমন অচলাবস্থা? একটা স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিজেদের মতো করে সিদ্ধান্ত নিতেই পারে কিন্তু সেটা না করে তারা বন্ধ বাড়িয়ে যাচ্ছেই। এদিকে চলমান পরীক্ষা হুট করে বন্ধ করে দেয়ায় আমরা যারা দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ক্যাম্পাসের আশেপাশে এসে অবস্থান করছি তারা তো বিপাকে পড়ে গেছি। সব কিছু মিলিয়ে আমাদের সুবিধা-অসুবিধা তো বুঝতে হবে।’

দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মাহবুব টোকন সারাক্ষণকে বলেন, ‘গত ছয় মাসে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে সর্বোচ্চ ১০ টি ক্লাশ হয়েছে। এভাবে ক্লাস করে পরীক্ষা দিতে গেলে শিক্ষার্থীরা কী বুঝবে আর কী লিখবে? এদিকে গ্রামের বাড়িতে থেকে অনলাইনে ক্লাস করা যায় না ইন্টারনেট অসুবিধার কারণে। অনলাইনে ক্লাস করার জন্য শহরে এসে দীর্ঘ সময় মেসে থাকা অনেক ব্যয়সাপেক্ষ। এত টাকা পয়সা খরচ করা অনেকের পক্ষেই সম্ভব না। এই বয়সে এত দীর্ঘ সময় বাসায় বেকার বসে থাকাটাও একটা বড় সসস্যা। এতে শারীরিক ও মানসিক চাপ তৈরি হয়। এই ধরনের শিক্ষার্থীদের একটা বড় অংশ হতাশায় ভুগছে শিক্ষা জীবন ও অন্যান্য জীবন নিয়ে।’

হল খোলার বিষয় নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আখতারুজ্জামান সারাক্ষণকে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের এমন দাবির প্রতি আমাদের সহমর্মিতা আছে। তবে জাতীয় সিদ্ধান্তের বাইরে আমরা কিছু করতে পারি না। একটা সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে আমাদের অনেক কিছু ভাবতে হয়। তাই জাতীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীকে ভ্যাকসিন দেয়া শেষ হলে হল বা ক্যাম্পাস খোলা হবে।’

এনএইচ

Islami Bank Ad

সাম্প্রতিক

১২, ১৩ এপ্রিলও লকডাউন

১২, ১৩ এপ্রিলও লকডাউন

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী বিক্ষোভে এক শহরেই নিহত ৮০

মিতা হক রবীন্দ্রসংগীত প্রেমীদের হৃদয়ে চিরকাল বেঁচে থাকবেন

মিতা হক রবীন্দ্রসংগীত প্রেমীদের হৃদয়ে চিরকাল বেঁচে থাকবেন

প্রিন্স ফিলিপের শেষকৃত্য ১৭ এপ্রিল

প্রিন্স ফিলিপের শেষকৃত্য ১৭ এপ্রিল

হবিগঞ্জে গণপিটুনিতে দুই ডাকাত নিহত

হবিগঞ্জে গণপিটুনিতে দুই ডাকাত নিহত

পুলিশের সহযোগিতায় দেশে ফিরলেন ওমরাহ করতে গিয়ে অসুস্থ বাংলাদেশি

পুলিশের সহযোগিতায় দেশে ফিরলেন ওমরাহ করতে গিয়ে অসুস্থ বাংলাদেশি

উত্তরায় ট্রেনের ধাক্কায় অটোচালকের মৃত্যু

উত্তরায় ট্রেনের ধাক্কায় অটোচালকের মৃত্যু

‘বঙ্গবন্ধুকে রক্ষার ব্যর্থতায় সাম্প্রদায়িক অপশক্তির উত্থান’

‘বঙ্গবন্ধুকে রক্ষার ব্যর্থতায় সাম্প্রদায়িক অপশক্তির উত্থান’

জুয়ার আসরে র‍্যাবের হাতে ধরা ১৬ জুয়াড়ি

জুয়ার আসরে র‍্যাবের হাতে ধরা ১৬ জুয়াড়ি

নিত্যপণ্যের বাজারে অভিযান, ৩১ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

নিত্যপণ্যের বাজারে অভিযান, ৩১ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

কাভার্ডভ্যানে ইয়াবা-গাঁজা পাচারকালে ৫ আন্তঃজেলা মাদক চোরাকারবারি আটক

কাভার্ডভ্যানে ইয়াবা-গাঁজা পাচারকালে ৫ আন্তঃজেলা মাদক চোরাকারবারি আটক

‘তারুণ্যের মেধা ও প্রযুক্তির শক্তিকে কাজে লাগিয়ে হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ’

‘তারুণ্যের মেধা ও প্রযুক্তির শক্তিকে কাজে লাগিয়ে হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ’

মৃত্যু ৭৭, বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা

মৃত্যু ৭৭, বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা