সব
শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭
AD

নবীন কবিদের একুশে স্মরণ

আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:২৯

বর্ণমালায় তোমায় খুঁজি

তানিয়া জাহান ঝর্ণা 

 

আজো আমি উদাস মেঘের আভায় ভাসাই

অপেক্ষার নীল প্রহর, না বলা কথার মন্জুরী,

এখনো দিনের আলোয় নিজেকে আঁধারে

বন্দী রেখে মনের কোণে জমিয়ে রাখি ব্যথা!

ফোঁটায় ফোঁটায় ঝরে পড়ে অপূর্ণ ইচ্ছেগুলো

কবিতায় ফুটিয়ে তুলি সোনালি দিনের গাঁথা।

তোমার লেখা ভালোবাসার নীল খামের চিঠি

ধুলোর আস্তরণে বর্ণহীন, 

কালো কালির লেখা অস্পষ্ট

অনুভূতির অনুভবে শুষ্ক মরুভূমি

আসবে বলেও সেদিন আর এলে না তুমি।

বাইরে মিছিল, স্লোগান, উত্তেজিত উত্তপ্ত জনতা

শুধু বলে গেলে বিপন্ন মোদের দুঃখিনী বর্ণমালা, 

সবার মাঝে মিশে গেলে, চারদিকে গুলির শব্দ

ছুটোছুটি, জুতো, চশমা, রক্তমাখা আর্তনাদ!

ঝরে পড়া অজস্র লাল কৃষ্ণচূড়া,

অস্ফুট কণ্ঠের আহাজারি, নীরব প্রাণহীন দেহ!

রক্তে মাখামাখি মুখগুলো, অপরিচিত অসাড়

ঢাকা মেডিকেলের মেঝেতে মুখ থুবড়ে পড়া 

মগজ বেরোনো ওটা কার লাশ!

সারা শরীরে লাল রঙের ছোপ ছাপ আলপনা

আবদুল গাফফার চৌধুরী, অধ্যাপক রফিক,

সফিক রেহমান অশ্রুসিক্ত চোখে দাঁড়িয়ে,

কণ্ঠরোধ তাদের, বুকে ক্ষোভ, চোখে আগুন

গাফফার চৌধুরীর কলমে বন্দী রক্তাক্ত ফাগুন।

মগজ বেরোনো লাশ, এ তো রফিক!

আমার ভাই, ভাষার জন্য ধুলায় লুণ্ঠিত বীর

সালাম, বরকত, জব্বার, রফিক।

এরা লাশ নয়, বর্ণমালার যোগ্য উত্তরসূরি

রক্তাক্ত পঙক্তিমালায় রচিত ভাষার ইতিহাস,

কলমে কিংবদন্তি আবদুল গাফফার চৌধুরী।

তুমিও ছিলে এদের মাঝে, নিস্তব্ধ

মায়ের ভাষা কেড়ে আনার নিবেদিত সৈনিক।

সেই ছোট্ট ছেলেটি, মিছিলের সামনে যে

দুহাত তুলে ক্ষুব্ধ প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছিল

তাকেও ঝাঁঝরা করেছিল ঝাঁকে ঝাঁকে বুলেট!

নরম কচি দেহটি লুটিয়ে পড়ে, হতাহত বর্ণমালা।

এত ত্যাগ, বলিদান আমরা কি ভুলতে পারি!

ভাইয়ের রক্তে রঞ্জিত সেই একুশে ফেব্রুয়ারি।

সেদিন তুমি রক্তস্রোতে গেলে ভেসে

মিশে আছো শহীদ মিনারে এই বাংলাদেশে।

জড়িয়ে আছো বাংলামায়ের ঠোঁটে

তোমার জন্য পলাশ, শিমুল ফোটে

তোমাদের মহান আত্মবলিদান

মর্যাদা পেয়েছে ভাষার সম্মান।

আজো আমি চিঠির নীল খামে

ধূসর ধুলোর গভীর আস্তরণে,

খুঁজে বেড়াই ভালোবাসার সুখ

বর্ণমালায় মিশে যাওয়া হারানো সেই মুখ। 

 

লন্ডন, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১

একুশনামা

জারিফ আলম

 

প্রতিজন্মে অক্ষরের উজ্জ্বল বিভা নিয়ে

আলোর তীব্রতায় হেসে ওঠে বর্ণমালা।

ফাগুনের বয়ঃসন্ধি পার না হতেই

উৎসুক চোখে দুর্মর ইচ্ছের সংলাপ

বেঁচে ওঠার কী দারুণ দুঃসাহস!

 

ঘৃণার মুখে প্রতিরোধে এগিয়ে রাখে নিজেকে

প্রতিশোধের মুখে বর্ণমালার সাহসী উচ্চারণ।

রক্তের প্রতি ফোঁটায়; লিখিত কাগজের পৃষ্ঠায়

সালাম-বরকত উড্ডীন রাখে ইতিহাস।

কবির কলমে যে কেবল দুঃখিনী বর্ণমালা;

সেই তারই মলিন মুখে সকালের প্রথম রোদে

কেমন জেগে উঠেছে করতলের স্বপ্নসকল!

বাংলা ভাষা সমতার কথা বলে;

সকল ভাষার হয়ে।

 

বাংলা আমার

ফারজানা কুইন

 

যে বাংলার তরে হারিয়ে গেছে শতপ্রাণ

সে বাংলা আজ কেন এত ম্লান?

চেতনা কি হারিয়ে গেছে,

নেমে কি গেছে ভাষার মান?

ভিনভাষা চর্চায় প্রজন্ম কি তবে

আজ দ্বিগুণ প্রতিভাবান?

আজ একুশ নেই, উনসত্তর নেই,

নেই অস্তিত্ববাদী আন্দোলন,

তবু এ কোন সংকটে পড়ে আছে

আমাদের একাত্তরের সংগ্রামশীল মন।

 

স্বপ্ন ছিল, উৎসাহ ছিল

ছিল বাঙালিবাদী স্লোগান,

বিদেশি ভাষা না হোক কখনো প্রভু

চিরকাল গাইব আমি

জয় বাংলার গান।

 

বাংলা ভাষা

নাসিমা মিলু

 

আমার মায়ের ভাষা

উচ্চারণমাত্র সুখধন্য এই মন

 

জানি না স্বাধীনতা এনে দিতে

ঘাতকের রোষানলে

আমার ভাইয়ের লেগেছিল কেমন

 

রাজপথ আন্দোলিত

বাংলার সন্তানের সুর

সমতানে গেয়েছিল বীর বাঙালি

বাংলা ভাষা কত না মধুর

 

জীবন দিয়েছে বোন আমার

বুলেট লেগেছে বুকে

চিৎকার করে মা ডেকেছে

বর্ণমালা যে মুখে

 

আজ বাংলার গানে

বেজেছে স্বদেশ সুমধুর

বিজয়-নিশান উড়বে

লাল সবুজের সাজে

শিল্প ও সাহিত্য বিভাগে লেখা পাঠানোর ঠিকানা : ‍[email protected]
AD

সাম্প্রতিক

ম্যানইউ, আর্সেনাল এসি মিলান শেষ ষোলোতে

ম্যানইউ, আর্সেনাল এসি মিলান শেষ ষোলোতে

টিভিতে ২৬ ফেব্রুয়ারির খেলা

টিভিতে ২৬ ফেব্রুয়ারির খেলা

সবকিছু আইসিসির ওপর ছেড়ে দিয়েছেন রুট

সবকিছু আইসিসির ওপর ছেড়ে দিয়েছেন রুট

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার মুসতাকের কারাগারে মৃত্যু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার মুসতাকের কারাগারে মৃত্যু

ফ্যানের ইতিহাস

ফ্যানের ইতিহাস

একটি বিজ্ঞানমনস্ক প্রজন্ম তৈরির চেষ্টা

একটি বিজ্ঞানমনস্ক প্রজন্ম তৈরির চেষ্টা

পোশাকে প্রকৃতি...

পোশাকে প্রকৃতি...

গুচ্ছ কবিতা

গুচ্ছ কবিতা

কাক
৫ দশকের পাঁচ কবির কবিতা

৫ দশকের পাঁচ কবির কবিতা

ভাষা আন্দোলনের মূল বিষয়টাই এখনও অর্জিত হয়নি

ভাষা আন্দোলনের মূল বিষয়টাই এখনও অর্জিত হয়নি