সব
রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭
DBBL Ad

 গাছের নাম থেকে যে দেশের নামকরণ

সুখী মানুষের দেশে সোয়া লাখ বছরের সভ্যতা!

বাংলায় আদমশুমারি

এশিয়াটিক সোসাইটি অফ বেঙ্গলের প্রতিষ্ঠাতা স্যার উইলিয়াম জোনস ১৭৮৩ সালে বৃটেন থেকে কলকাতায় আসেন। বাংলা, বিহার, উড়িষ্যা ও বারাণসীসহ জনসংখ্যা দুই কোটি চল্লিশ লাখ বলে তিনি বর্ণনা করেন।

আপডেট : ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:০০

বৃটিশ নিয়ন্ত্রিত ভারতবর্ষের জনসংখ্যা কতো তা নিয়ে অনেক ভাবনা ছিল ক্ষমতাসীনদের। বিশেষ করে বাংলার জনসংখ্যা ছিল তাদের মাথাব্যথার অন্যতম কারণ। বাস্তবতা হচ্ছে এই বিশাল জনসংখ্যার জন্যই আমেরিকা বা অস্ট্রেলিয়ার মতো বাংলা বা ভারতবর্ষের আদিবাসীদের নিশ্চিহ্ন করা সম্ভব হয়নি। ১৭৭০ এবং ১৯৪৩ সালে দুটো বড় দুর্ভিক্ষে অসংখ্য মানুষের মৃত্যু হলেও বৃটিশদের পক্ষে এই অঞ্চলের আদিবাসীমুক্ত একচ্ছত্র শ্বেতাঙ্গ শাসন প্রতিষ্ঠা করা ছিল অসম্ভব। দুটো দুর্ভিক্ষের সৃষ্টির পেছনে বৃটিশদের সক্রিয় ভূমিকা ছিল। প্রথমটিতে বাংলার আনুমানিক তিন কোটি মানুষের এক কোটি মানুষই মৃত্যুবরণ করেন। তখন বাংলায় মানুষ এতো কমে যায় যে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির পক্ষ থেকে মৃত্যুর কারণে শূন্য লোকালয়কে ‘হিংস্র শ্বাপদসংকুল ও ঘন বনে আচ্ছাদিত এলাকা’ বলে ইংল্যান্ডে প্রতিবেদন পাঠানো হতো। আর ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষের পেছনে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিলের সক্রিয় পরিকল্পনা  ছিল বলে অভিযোগ আছে। যেখানে কমপক্ষে ত্রিশ লাখ মানুষ মারা গিয়েছিলেন। 

১৮৭২ সালের শীতে, ১২৭৮ বঙ্গাব্দে বৃটিশরা প্রথমআদম শুমারি করেন। পাচঁটি অঞ্চল নিয়ে গঠিত ছিল বেঙ্গল প্রভিন্স। এই বঙ্গদেশ বা বাংলায় তখন একজন লেফটেনেন্ট গভর্নর ছিলেন। তার অধীনে বাংলা প্রদেশের সীমানা ছিল অবিভক্ত বাংলা (পরবর্তী পূর্ববঙ্গ ও পশ্চিমবঙ্গ), বিহার, উড়িষ্যা, আসাম এবং ছোট নাগপুরকে নিয়ে। সে সময়ের হিসাব অনুসারে বাংলার লোকসংখ্যা ছিল ৩,৬৭,৬৯,৭২৫ জন। বিহারে ১,৯৭,৩৬,১০১জন। উড়িষ্যায় ৪৩,১৭,৯৯৯ জন। ছোট নাগপুর ৩৮,২৫,৫৭১ জন। এবং আসামে ২২,০৭,৪৫৩ জন। বাংলায় মোট জনসংখ্যা ছিল ৬,৬৮, ৫৬, ৮৪৯ জন। বৃটিশ নিয়ন্ত্রিত ভারতবর্ষে মোট জনসংখ্যা ছিল ১৮, ১১,২২,২৫৪ জন। অর্থাৎ ভারতবর্ষের জনসংখ্যার তিন ভাগের এক ভাগই ছিল বাংলা প্রদেশে।

বাংলার সবচেয়ে জনসংখ্যাবহুল এলাকা ছিল হুগলি। সেখানে প্রতি বর্গমাইলে থাকতেন ১,০৪৫ জন। ঢাকা, ফরিদপুর, পাবনা প্রভৃতি জেলায় গড় জনসংখ্যা প্রতি বর্গমাইলে ছয়শর বেশি ছিল। সে সময় পুরো বৃটেনে অর্থাৎ ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড এবং ওয়েলসের মিলিত জনসংখ্যা ছিল ৩,১৮,১৭,১০৮ জন। বাংলা প্রদেশ তখন আকার ও জনসংখ্যায় ছিল গ্রেট বৃটেনের দ্বিগুণ।

এর আগেও বৃটিশরা বাংলার জনসংখ্যা নিয়ে কাজ করেছেন। এশিয়াটিক সোসাইটি অফ বেঙ্গলের প্রতিষ্ঠাতা স্যার উইলিয়াম জোনস ১৭৮৩ সালে বৃটেন থেকে কলকাতায় আসেন। বাংলা, বিহার, উড়িষ্যা ও বারাণসীসহ জনসংখ্যা দুই কোটি চল্লিশ লাখ বলে তিনি বর্ণনা করেন। তখন এই পুরো অঞ্চলটিই বেঙ্গল হিসেবে বিবেচিত হতো। ১৮০২ সালে হেনরি কোলব্রুক এই অঞ্চলের জনসংখ্যা তিন কোটি বলে বর্ণনা করেন। বিভিন্ন সময়ের জনসংখ্যা গণনায় দেখা গিয়েছে বাংলায় নারী পুরুষের সংখ্যা প্রায় কাছাকাছি। যা এই অঞ্চলে সামাজিক ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করে এসেছে।

 গাছের নাম থেকে যে দেশের নামকরণ

 গাছের নাম থেকে যে দেশের নামকরণ

সুখী মানুষের দেশে সোয়া লাখ বছরের সভ্যতা!

সুখী মানুষের দেশে সোয়া লাখ বছরের সভ্যতা!

ভারতের সবচেয়ে প্রাচীন মসজিদ

ভারতের সবচেয়ে প্রাচীন মসজিদ

৪২ হাজার বছর আগে নিয়েন্ডারথাল প্রজাতির বিলুপ্তি!

৪২ হাজার বছর আগে নিয়েন্ডারথাল প্রজাতির বিলুপ্তি!

প্রত্নতত্ত্বের কাজ ছিল যার সাধনা

প্রত্নতত্ত্বের কাজ ছিল যার সাধনা

জলদস্যু নেতা থেকে পর্তুগিজ ভাইসরয়

জলদস্যু নেতা থেকে পর্তুগিজ ভাইসরয়

Islami Bank Ad

জনপ্রিয়

ছাত্রছাত্রীদের জন্য বিনা মূল্যে ও স্বল্পমূল্যে ল্যাপটপ!

ছাত্রছাত্রীদের জন্য বিনা মূল্যে ও স্বল্পমূল্যে ল্যাপটপ!

‘ব্যতিক্রম লাইব্রেরি’তে বইয়ের কেজি ৫০ টাকা!

‘ব্যতিক্রম লাইব্রেরি’তে বইয়ের কেজি ৫০ টাকা!

জামালপুরে বিএনপির পুনর্নির্বাচন দাবি

জামালপুরে বিএনপির পুনর্নির্বাচন দাবি

জামালপুরে তিন পৌরসভায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু

জামালপুরে তিন পৌরসভায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু

গ্যাল গ্যাডটকে প্রিয়াঙ্কার উপহার

গ্যাল গ্যাডটকে প্রিয়াঙ্কার উপহার

টেইলর সুইফটের ‘লাভ ফেস্ট’ ট্যুর বাতিল

টেইলর সুইফটের ‘লাভ ফেস্ট’ ট্যুর বাতিল

আমেরিকা কাঁপাল জাপানের যে অ্যানিমেশন সিনেমা

আমেরিকা কাঁপাল জাপানের যে অ্যানিমেশন সিনেমা

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যার অভিযোগ

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যার অভিযোগ